শিশু সন্তানসহ অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ, শ্বশুর আটক

প্রকাশ: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯     আপডেট: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

নোয়াখালী প্রতিনিধি

নোয়াখালীতে পারিবারিক কলহের জেরে তিন বছরের শিশু সন্তান ও তার অন্তঃসত্ত্বা মাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে নিহত গৃহবধূর শ্বশুরকে আটক করেছে পুলিশ। 

শনিবার বিকেলে সদর উপজেলার আন্ডারচর ইউনিয়নের কাজির চর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

নিহতরা হচ্ছেন গৃহবধূ পান্না আক্তার (২৪) ও তার শিশু সন্তান লামিয়া (৩)। 

পুলিশ শনিবার সন্ধ্যায় মরদেহ উদ্ধার করে। রোববার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। 

জানা গেছে, ৫ বছর আগে আন্ডারচর ইউনিয়নের কাজির চর গ্রামের আইয়ুব আলীর ছেলে মো. সুমনের (৩২) সঙ্গে কালাদরাপ ইউনিয়নের পশ্চিম শুল্যকিয়া গ্রামের আবুল কালামের মেয়ে পান্নার বিয়ে হয়। 

নিহত গৃহবধূর বাবা আবুল কালাম অভিযোগ করেন, বিয়ের পর থেকে শ্বশুর বাড়িতে নানা অজুহাতে পান্নার ওপর নির্যাতন চালাতেন তার স্বামী ও শ্বশুর। শনিবার সকালে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পান্নার শ্বশুর তাকে এলোপাতাড়ি মারধর করেন। এ সময় পান্নার স্বামী বাড়িতে ছিলেন না। এক পর্যায়ে পান্নাকে তার শ্বশুর শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন। এ সময় পান্নার তিন বছরের মেয়ে লামিয়া কান্নাকাটি করলে তাকেও শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়। হত্যা শেষে একই রশিতে পান্না ও তার শিশু সন্তানকে ঝুলিয়ে রেখে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচার চালানো হয়েছে। 

খবর পেয়ে সুধারাম মডেল থানা পুলিশ মা-মেয়ের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতন্তদের জন্য নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নবীর হোসেন জানান, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে আসার পর বোঝা যাবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা। এ ঘটনায় পান্নার শ্বশুর আইয়ুব আলীকে আটক করা হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। এ ঘটনায় নিহত গৃহবধূর বাবা পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।