'আমি যখন নতুন ছিলাম তখন নামি দামি কোন মঞ্চে গান গান গাওয়ার সুযোগ আমি পাইনি। নতুন শিল্পীদের কত যে যন্ত্রণা, কত যে ভোগান্তি সেটা আমি বুঝি।'

কথাগুলো বলছিলেন 'অঞ্জনা' নামের এক তরুণীর নামে গান গেয়ে আলোড়ন তোলা গায়ক মনির খান। 

মনির খানের মনির খানের প্রথম অ্যালবাম প্রকাশের ২৫ বছর হলো সম্প্রতি। ওই অ্যালবামের সাথে সংশ্লিষ্ট সবইকে সম্মান জানাতে ও এই সময়টাকে স্মরণ করার জন্য রাজধানীর কঁচিকাঁচারমেলা মেলা প্রাঙ্গনে সম্প্রত মনির খানের অনুরাগীরা আয়োজন করেছিলেন ২৫ বছর পূর্তি উৎসব। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি করা হয়েছিল মিল্টন খন্দকারকে। অতিথি করা হয়েছিল মিলন ভট্টচার্য ও মনির খানের প্রথম অ্যালবাম 'তোমার কোনো দোষ নেই' এর সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা সকলকেই। 

মনির খানের এই অনুষ্ঠান ছিল মূলত কৃতজ্ঞতা স্বীকারের। আজ থেকে ২৫ বছর আগে মনির খান কিভাবে শিল্পী হয়ে ওঠার চেষ্টা করেছিলেন। কত ঘাত প্রতিঘাত পেরিয়ে শিল্পী হয়েছিলেন, সেসব তুলে ধরেছেন। অকপটে বলে গেছেন খেয়ে না খেয়ে একজন মনির খানের শিল্পী হয়ে ওঠার গল্প। মনির খানের কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করেছেন। 

মনির খান খান বলেন, 'আমার কোনো অহংকার নেই। আমি সেইদিনের কথা ভুলে যাইনি। গ্রাম থেকে টাকা নিয়ে এসেছিলাম গানের ক্যাসেট করবো বলে। মিল্টন খন্দকার ভাই সেই টাকা ফেরত দিয়ে আসতে বলেছিলেন। আমি ফেরত দিয়ে এসেছিলাম। একজন মিল্টন খন্দকার আমার জীবনে যে কি তা বলে বোঝাতে পারবো না। তখন একটা মেসে থাকতাম, হেঁটে হেঁটে সঙ্গীত পরিচালক ফরিদ আহমেদ ভাইয়ের কলাবাগানের বাসায় যেতাম। ফরিদ ভাইয়ের স্ত্রী আমাকে কোন দিন না খাইয়ে আসতে দেননি। সেসব দিন আমি ভুলিনি।' 

তিনি আরও বলেন, মিল্টন খন্দকারের সঙ্গে আমার ৩০ বছরের সম্পর্ক। এই সময়ে আমাদের সম্পর্কের কোন ঘাটতি হয়নি। এই পচিঁশ বছরে অনেক সংসারে ডিভোর্স হয়ে গেছে। কিন্তু মিল্টন খন্দকারের সঙ্গে মনির খানের ডিভোর্স হয়নি। এই ত্রিশ বছরে আমার জীবনে আগোছালো, অপূর্ণতা যা কিছু ছিলো সব কিছু তিলে তিলে  শুধরে নেয়ার দায়িত্ব মিল্টন ভাই নিয়েছে।  যে মানুষটি আমার জীবনের এতো কিছুর সঙ্গে জড়িত, আমার জন্য এতো কিছু করেছে তাকে আমি সম্মান করবো না, তাকে সংগীতের পিতা বলবো না এমন মানুষ আমি নই।

মনির খান তার বক্তব্যে বলেন, 'আজ এই অনুষ্ঠানে আমি তেমন কোনো অতিথিকে ডাকিনি। কারণ আজকের অনুষ্ঠান আমার সাধারণ ভক্তদের নিয়ে। যারা একজন সঙ্গীতশিল্পী হয়ে উঠতে চায়, মঞ্চে উঠতে চায় আজ তাদের ডেকেছি তারা মঞ্চে উঠে গাইবে আজ। আজ কোনো পেশাদার শিল্পী গাইবে না। কারণ একজন নতুন শিল্পীর বেদনা আমি বুঝি। আমার বন্ধু মানুষ রবি চৌধুরী এই অনুষ্ঠানের ঘটনা জানতে পেরে আমাকে ফোন দিয়েছিল। বলল বন্ধু তুমি আমাকে দাওয়াত করলে না। আমি বললাম এটা তো সাধারণের অনুষ্ঠান আমি তো শিল্পী হিসেবে কাউকে বলিনি।'

সেই অনুষ্ঠানে তখনও মনির খানের বক্তব্য চলমান। এরমধ্যে অনুষ্ঠালস্থলে অবাক করা ঘটনা ঘটলো। রবি চৌধুরী চলে এলেন। মনির খান বিস্ময়ে অভিভূত। প্রিয় বান্ধবী দাওয়াত দেয়নি তাতে কি, বন্ধুর জীবনের এমন একটি উদযাপনের দিনে না এসে কি থাকা যায়। আবেগে রবি, মনির খান দুজনই পরস্পরকে জড়িয়ে ধরলেন।

বিষয় : বিনোদন মনির খান রবি চৌধুরী

মন্তব্য করুন