ঢাকা শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

বিষাক্ত বর্জ্যে গরুর মৃত্যু

কারখানার আশপাশের ঘাস ও খড় না খাওয়ানোর পরামর্শ

কারখানার আশপাশের ঘাস ও খড় না খাওয়ানোর পরামর্শ

তদন্ত কমিটির সদস্যরা এলাকাবাসীর সঙ্গে কথা বলছেন।

ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) সংবাদদাতা

প্রকাশ: ০৫ ডিসেম্বর ২০২১ | ০৬:০২ | আপডেট: ০৫ ডিসেম্বর ২০২১ | ০৬:০৭

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে গত এক সপ্তাহে অজ্ঞাত রোগে ২০টি গরুর মৃত্যুর ঘটনায় দুটি বিশেষ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা এলাকাবাসীকে কারখানার আশপাশের এলাকার ঘাস ও খড় না খাওয়াতে সতর্ক করে রহস্য উদ্ঘাটনে কাজ করছেন। তারা ধারণা করছেন লেড (সীসা) বিষক্রিয়ার কারণেই ওই গরুগুলোর মৃত্যু হয়েছে। 

শনিবার বিকেলে উপজেলার আলাদিপুর ইউনিয়নের বাসুদেবপুর পাকড়ডাঙ্গা গ্রামে (ফুলবাড়ী-মাদিলাহাট সড়ক) ব্যাটারি রিসাইকেল কারখানায় উপস্থিত হয়ে নমুনা সংগ্রহ করেন তদন্ত কমিটির সদস্যরা। 

গঠিত তদন্ত কমিটির দুটিই পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট। এর মধ্যে একটিতে উপজেলা প্রাণি সম্পদের ভেটেনারি সার্জন ডা. নেয়ামত আলীকে প্রধান করা হয়। অপরটিতে প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা ডা. শাহানুর আলমকে প্রধান করা হয়েছে। 

ডা. নেয়ামত আলী বলেন, অজানা কারণে গরু মারা যাওয়ার ঘটনায় দু’টি বিশেষ তদন্ত টিম কাজ করছে। টিমের সদস্যরা সরেজমিন তদন্ত করে ধারণা করছে এটি লেড বিষক্রিয়ার কারণে ঘটেছে। এ ঘটনায় এলাকাবাসীকে সর্তকীকরণসহ গরু খামারিদের বিভিন্ন দিকনিদের্শনা দেওয়া হচ্ছে। 

তিনি বলেন, মাইকিংয়ের মাধ্যমে কারখানা এলাকার আশপাশের ঘাস ও খড় গবাদিপশুকে না খাওয়ানোর জন্য অবহিত করা হচ্ছে। কারখানা এলাকার বিষাক্ত মাটি, ঘাস এবং খড়ের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। এছাড়াও কারখানা এলাকাটি গবাদিপশুর চারণভূমি হিসেবে ব্যবহার না করার জন্য সাইনবোর্ড টানিয়ে দেওয়া হয়েছে। 

নেয়ামত আলী বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত ওই খামারিদের তালিকা করে ক্ষতিপূরণের বিষয়ে উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলা হচ্ছে।

এদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রিয়াজ উদ্দিন বলেন, বিষয়টি নিয়ে সার্বক্ষণিক মনিটরিং করা হচ্ছে। ওই এলাকা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট আসার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উল্লেখ্য, গত ২ নভেম্বর দৈনিক সমকাল অনলাইন এবং ৩ নভেম্বর প্রিন্ট সংস্করণের ১৫ পৃষ্ঠার ৫ কলামে ‘ফুলবাড়ীতে ব্যাটারি কারখানার বিষাক্ত বর্জ্যে ২০ গরুর মৃত্যু’ শিরোনামে নিউজ প্রকাশের পর ওই দু’টি তদন্ত কমটি গঠন করে প্রশাসন।


আরও পড়ুন

×