কালবৈশাখীর এই সময়ে মাঝেমধ্য়েই ঝড়-বৃষ্টি হতে পারে। এ সময় অনেকের শখের গাছের ক্ষতি করতে পারে। এ কারণে গাছ বাঁচাতে বিশেষ যত্ন নেওয়া প্রয়োজন।

অত্যাধিক বৃষ্টিপাতের ফলে গাছের গোড়ায় পানি জমে যায়। অতিরিক্ত পানির মধ্য়ে শিকড় পচে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে গাছের মাটির উপর বেশ কিছু পরিমাণ প্রাকৃতিক সার দিয়ে রাখতে পারেন। এতে মাটি সরাসরি অতটাও ভেজে না। শিকড় সুরক্ষিত থাকে।

ছোট গাছ হলে আড়াল করে রাখুন। সদ্য লাগানো গাছ হলে সেটি ছাদে বা বারান্দায় কোনও খোলা জায়গায় রাখবেন না। গাছটি ছাওয়ার মধ্য়ে রাখতে পারেন যাতে গাছগুলিকে সরাসরি বৃষ্টি বা ঝড়ের মুখে তাদের পড়তে না হয়। সরাসরি ভারী বৃষ্টি বা ঝড়ে গাছের ক্ষতি হতে পারে। বড় কিন্তু স্পর্শকাতর গাছ হলেও সেটা ঘরের মধ্য়ে ঢুকিয়ে রাখতে পারেন। কিংবা একটা প্লাস্টিক দিয়ে মুড়িয়ে দিতে পারেন। এতে গাছের গায়ে সরাসরি বৃষ্টি লাগবে না।

ক্যাকটাসের মতো অনেক গাছ আছে, যেগুলোর বেঁচে থাকার জন্য় অল্প পরিমাণ পানি প্রয়োজন। সেসব গাছ এই সময়ে ঘরের মধ্য়ে ঢুকিয়ে রাখুন। অতিরিক্ত পানির জন্য় এই গাছ পচে যেতে পারে।

যেসব গাছ টবে বড় করছেন কিন্তু ছাদে রেখেছেন, সেগুলোর প্রতিও যত্নশীল হতে হবে। ঝড়ের দাপটে গাছের টব পাঁচিল থেকে পড়ে যেতে পারে। আবার অতিরিক্ত বৃষ্টির কারণে গাছের গোড়ায় পানি জমতে পারে। এই সময় টবগুলো উল্টে রাখুন। অর্থাৎ মাটিতে শুয়ে রাখুন। এতে টবের গায়ে বা গাছের গায়ে ঝড়ের দাপট সেরকম লাগবে না। এদিকে গাছও সুরক্ষিত থাকবে।

ঝড় বৃষ্টির পরে গাছের গোড়ার পানি ফেলে দিন। গাছের মাটি খুঁড়ে দিন। বৃষ্টির পানি গাছের জন্য় ভালো। কিন্তু অতিরিক্ত পানি ভালো নয়।