ঢাকা বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

দেশের প্রথম আন্তর্জাতিক নারী আম্পায়ার

দেশের প্রথম আন্তর্জাতিক নারী আম্পায়ার

সাথিরা জাকির জেসি

গল্প শুনেছেন আশিক মুস্তাফা

প্রকাশ: ০৫ মে ২০২৪ | ০০:১৩ | আপডেট: ০৫ মে ২০২৪ | ১০:১১

সাথিরা জাকির জেসি। দেশের প্রথম আন্তর্জাতিক নারী আম্পায়ার। গত ১০ ফেব্রুয়ারি মালয়েশিয়ায় অনুষ্ঠিত উইমেন্স প্রিমিয়ার লিগ দিয়ে নিজের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শুরু করা জেসি আগামী ১৮ জুলাই শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিতব্য এশিয়া কাপেও প্রতিনিধিত্ব করবেন বাংলাদেশের। এই স্বপ্নবাজ কেমন করে উঠে এলেন তাঁর স্বপ্নের ট্র্যাকে, সেই গল্প শুনেছেন আশিক মুস্তাফা

২৫ এপ্রিল মিরপুর শেরেবাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেটে সুপার লিগের ম্যাচে আম্পায়ারিংয়ের দায়িত্বে থাকা সাথিরা জাকির জেসিকে নিয়ে আলোচনা এখন সর্বত্র। ডিপিএলের ইতিহাসে প্রথম কোনো নারী আম্পায়ার হিসেবে ম্যাচ পরিচালনা করেন তিনি। শুধু তা-ই নয়; গেল ১০ ফেব্রুয়ারি মালয়েশিয়ায় অনুষ্ঠিত উইমেন্স প্রিমিয়ার লিগে থাইল্যান্ড বনাম মিয়ানমার ম্যাচ দিয়ে দেশের প্রথম নারী আম্পায়ার হিসেবে নিজের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শুরু করেন জেসি। নিজের ক্যারিয়ার সম্পর্কে জানতে চাইলে সাথিরা জাকির জেসি বলেন, ‘আমার আম্পায়ারিং ক্যারিয়ার মূলত অফিসিয়ালি ২০২২ সালে শুরু। স্কুল ক্রিকেট, থার্ড ডিভিশন, সেকেন্ড ডিভিশন, ফার্স্ট ডিভিশন, লঙ্গার ভার্সন ছেলেদের এবং মেয়েদের খেলা পরিচালনা করেছি অনেক। ২০২৩ সালের জুলাই মাসে প্রথম ইন্টারন্যাশনাল টুর্নামেন্টে সুযোগ পাই রিজার্ভ এবং অনফিল্ড আম্পায়ার হিসেবে। দুর্ভাগ্যবশত বৃষ্টির কারণে সেই সিরিজে অনফিল্ড আম্পায়ার হিসেবে মাঠে আমার আন্তর্জাতিক অভিষেকটা হয়ে ওঠেনি। এর আগে ভারত-বাংলাদেশ ও পাকিস্তান-বাংলাদেশ সিরিজে রিজার্ভ আম্পায়ার হিসেবে ছিলাম। এ ছাড়া লিজেন্ড লিগ থেকে শুরু করে ভারতের বেশ কয়েকটি বড় টুর্নামেন্টেও আম্পায়ারিং করেছি।’

জন্ম ও বেড়ে ওঠা
ছোটবেলায় বড্ড ডানপিটে ছিলেন জেসি। দিনমান পড়ে থাকতেন ক্রিকেটের ব্যাট-বল নিয়ে। স্কুলশিক্ষক মা হাসিনা আক্তার মাঝেমধ্যে বকাঝকা করলেও মেয়ের ইচ্ছাকেই গুরুত্ব দিতেন। ব্যাংকার বাবা রফিকুল ইসলাম আর বড় ভাই দারুল রৌশনও বোনকে দিতেন অকুণ্ঠ সমর্থন। শৈশবের কথা মনে করিয়ে দিতেই চোখ ভিজে আসে জেসির। নস্টালজিক জেসি বলেন, ‘অনেক আনন্দে কেটেছে আমার শৈশব। আসলে আমার আজকের এই অবস্থানে আসার পেছনে পরিবারের অবদান সবচেয়ে বেশি। ছোটবেলা থেকেই বাবা-মায়ের কাছ থেকে সব সময় নিজের ইতিবাচক চিন্তার স্বাধীনতা পেয়েছি। মূলত, মায়ের অনুপ্রেরণাতেই আমি আজকের এই অবস্থানে এসে দাঁড়াতে পেরেছি।’ জেসির জন্ম ও বেড়ে ওঠা লালমনিরহাটের পাটগ্রামে। তাহেরা বিদ্যাপীঠে তাঁর শিক্ষার হাতেখড়ি। হুজুর উদ্দিন বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে ষষ্ঠ শ্রেণি পড়ে সপ্তম শ্রেণিতে এসে ভর্তি হন বিকেএসপিতে। বিকেএসপি থেকে এসএসসি দিয়ে ঢাকা মডেল ডিগ্রি কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করে ভর্তি হন আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে। মিডিয়া অ্যান্ড মাস কমিউনিকেশনে স্নাতক ও ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজে স্নাতকোত্তর করেন।

খেলা থেকে আম্পায়ারিংয়ে
লাল-সবুজের জার্সি গায়ে মাঠ মাতিয়েছেন জেসি। মাঠই তাঁর বড্ড আপন। তাই তো বলেন, ‘সব সময় চাইতাম মাঠের মাঝখানে থাকতে। পৃথিবীর সবচেয়ে দাপুটে ক্রিকেটারকেও অবসরে যেতে হয়। আমাকেও সেই পথ মাড়াতে হয়েছে। তবে মাঝ মাঠকে আপন করতে অনেক আগেই আম্পায়ারিংয়ে ক্যারিয়ার গড়ার প্রস্তুতি নিতে থাকি। গত বছর হংকংয়ে অনুষ্ঠিত এমার্জিং এশিয়া কাপে খেলতে যাই। সেখানেই মূলত খেলোয়াড় হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ খেলি। সেই দিন খেলা শেষ করেই বিমানে বসেছি আম্পায়ারিংয়ের উদ্দেশ্যে। চেয়েছিলাম, যেদিন আমার আন্তর্জাতিক আম্পায়ারিংয়ের সুযোগটা ফাইনাল হবে, সেদিনই খেলা ছাড়ব; তা-ই হয়েছে। এ ছাড়া খেলার মধ্যে ধারাভাষ্য দিয়েছি। করেছি টিভি অনুষ্ঠান। ধারাভাষ্য দিলে অনেক কিছুই শেখা যায়। তখন আমাদের অত টুর্নামেন্ট হতো না। বছরে এক বা দুটি টুর্নামেন্ট হতো। বাকি সময়টা বসেই কাটাতে হতো। ফ্রি সময়টা ক্রিকেটের সঙ্গে থেকেছি।’

ক্রিকেটের স্মরণীয় দিন
জেসি বলেন, ‘২০২৩ সালের ১০ জুলাই ক্রিকেট ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচ খেলি। মাঠ থেকেই সতীর্থরা আমাকে বিদায় দিয়েছেন। জীবনের সবচেয়ে স্মরণীয় দিন এটি। খেলা ছিল বিকেএসপির মাঠে। পাশের আরেকটি মাঠে আবাহনী-মোহামেডানের ম্যাচ ছিল। সেই মাঠ থেকে সালমা-রোমানাসহ সবাই দৌড়ে এসেছিল। চারটি দল। সবাই ব্যাট নিয়ে মাঠের দু’পাশে লাইন ধরে দাঁড়িয়ে ব্যাট উঁচিয়ে ধরেছে। ফুলের মালা পরিয়ে দিয়েছে। ফুল ছিটিয়েছে– এসব দেখে আমার দু’চোখ বেয়ে পানি গড়িয়ে পড়েছে। এরচেয়ে আনন্দের আর মনে রাখার মতো কোনো স্মৃতি থাকতে পারে না একজন খেলোয়াড়ের জীবনে। আমি সেদিন খুব ভালো পারফর্মও করেছি। সেদিনের কথা ভুলতে পারব না!’

অর্জন ও মানবিক কাজ
‘আম্পায়ারিংয়ে অর্জন বলতে এটাই তো আমার কাছে অনেক বড় পাওয়া যে, দেশের ইতিহাসের প্রথম আন্তর্জাতিক নারী আম্পায়ার আমি। আমাদের সামাজিক যে প্রতিবন্ধকতা, সেই প্রতিবন্ধকতাকে ছাপিয়ে আম্পায়ারিংকে ক্যারিয়ার হিসেবে নিয়েছি, এটাও কম কী! বর্তমানে জাতীয় দলে খেলছে এমন চার-পাঁচজন মেয়েকে আমি একেবারে জিরো থেকে তুলে এনেছি; যারা ঢাকার বাইরের এবং যাদের আর্থিক অবস্থা তেমন ভালো ছিল না। ওদের অনেককে আমার বাসায় রেখে প্র্যাকটিস করিয়েছি। শিশুপল্লি প্লাস নামে একটি অরফান হাউসে ছোটদের কোচিং করিয়েছি। সেখানকার অনেক মেয়ে এখন স্বাবলম্বী হয়েছে। প্রিমিয়ার লিগে খেলছে। আনসারে চাকরি করছে খেলোয়াড় হিসেবে। অনেকে বিকেএসপিতে আছে। পাটগ্রামে ক্রিকেট একাডেমি গড়ে তুলেছি। প্র্যাকটিসের জন্য তাদের এখন আর রংপুর বা ঢাকামুখী হতে হয় না। বাড়িতে থেকেই ক্রিকেটের পাঠ নিচ্ছে। সেই সঙ্গে পড়াশোনাও চালিয়ে যেতে পারছে। যারা আর্থিকভাবে অসচ্ছল, তারা পূর্ণ স্কলারশিপ নিয়ে অনুশীলন করছে।’ 

আলোচিত ঘটনার নেপথ্য কথা
সাম্প্রতিক সময়ে যে বিষয়টি নিয়ে পুরো বাংলাদেশ তোলপাড় হয়ে গেছে, সে সম্পর্কে জানতে চাইলে জেসি বলেন, ‘দেশজুড়ে তোলপাড় হয়ে গেছে আমাকে নিয়ে ঠিকই, তবে এটি ঘটেছে অনেকটা আমার সম্পর্কে অজানা তথ্যে ভর করে। আমি মূলত আমার কাজটা করেছি। আমার প্রথম ম্যাচ, ক্যারিয়ার– এসব নিয়েই বেশি মনোযোগী ছিলাম। তবে যা হয়েছে তা হয়তো ভালোর জন্যই হয়েছে! এর মাধ্যমে এটিও বুঝতে পেরেছি, আমরা নারী আম্পায়ারদের কীভাবে দেখি। বিষয়টিকে আমি ইতিবাচকভাবেই দেখছি। বেশির ভাগ মানুষ এবং সিংহভাগ মিডিয়া ইতিবাচক খবর প্রকাশ করেছে। এটি অনেক ভালো লাগার বিষয়। তবে ঝড় যা গেছে, তা আমার ওপর দিয়েই গেছে; যা শোনার আমিই শুনেছি। সামনের দিনে যেসব নারী আম্পায়ার আসবেন, তারা এমন ঝড়ের মুখোমুখি হবেন না নিশ্চয়ই!’ 

আগামীর স্বপ্ন 
আগামীর স্বপ্নের কথা জানতে চাইলে জেসি বলেন, ‘অনেক বড় স্বপ্ন আমার। আপাতত চোখ ২০২৪ সালেই। জুলাইয়ে শ্রীলঙ্কায় এশিয়া কাপ শুরু হতে যাচ্ছে। প্রথম টার্গেট সেখানে আম্পায়ারিং করা। এটি ফাইনাল হয়ে গেছে। এরপর সেপ্টেম্বরে বাংলাদেশে নারী টি২০ ওয়ার্ল্ড কাপ হতে যাচ্ছে। সেখানেও আম্পায়ারিং করতে চাই! আর চূড়ান্ত স্বপ্নের কথা যদি বলেন তবে বলব, বিশ্বের সেরা আম্পায়ারদের একজন হিসেবে অবসরে যাওয়া। আগামী দিনে অসংখ্য নারী আম্পায়ার দেখবেন আপনারা। আমি অবসরে গেলে হয়তো তাদের মধ্যেই নিজেকে খুঁজে বেড়াব। এরচেয়ে বড় অর্জন এবং বড় স্বপ্ন আর কীইবা হতে পারে!’ 

আরও পড়ুন

×